হ্যালো বলতে কি বোঝ?

হ্যালো

মুসলিম চিত্রকলার সঙ্গে যে বিষয়টি ওতপ্রোতভাবে সংশ্লিষ্ট তা হচ্ছে ‘হ্যালো’।বাইজানটাইন থেকে উৎসারিত হয়ে হ্যালো ইলখানী চিত্রকলার মাধ্যমে বিকশিত হয়ে মোঘল চিত্রকলায় পূর্ণতা পেয়েছে। তাই বলা হয়ে থাকে মুসলিম চিত্রকলায় হ্যালোর অবস্থান গুরুত্বপূর্ণ।

হ্যালো বলতে কি বুঝায়

চিত্রশিল্পে কোন মহান ব্যক্তির প্রতিকৃতি অঙ্কনের ক্ষেত্রে উক্ত ব্যক্তির মহাত্ম প্রকাশের জন্য অঙ্কিত প্রতিকৃতির পিছনে যে উজ্জ্বল রংয়ের গোলাকার মেডালিয়ান ব্যবহার করা হয় তাকে হ্যালো বলা হয়। মুসলিম চিত্রকলার ইতিহাস মেসোপটেমীয় চিত্রকলায় প্রথমদিকে বাইজান্টাইন প্রভাবে গোলাকার হ্যালোর প্রভাব পরিলক্ষিত হয়। ইলখানী চিত্রকলায় হ্যালো ব্যবহৃত হয়েছে ‘শিখার’ মত। এ হ্যালোতে অবশ্য চীনা প্রভাব ছিল।

হ্যালোর ব্যবহার

ইলখানী চিত্রকলায় হ্যালোর ব্যবহার হলেও মোঘল চিত্রকলায় আমরা হ্যালোর ব্যবহার দেখতে পাই সম্রাট জাহাঙ্গীরের আমলে। মোঘল চিত্রশিল্পী আবুল হোসেন সম্রাট জাহাঙ্গীরের যে প্রতিকৃতি অঙ্কন করেন সেক্ষেত্রে হ্যালোর ব্যবহার করা হয়েছে।

হ্যালোর ব্যবহার বিকাশমান মোঘল চিত্রকলাকে পূর্ণতা দিয়েছে এবং সমৃদ্ধ করেছে নিঃসন্দেহে। সুতরাং একথা বলা যায় যে, মুসলিম চিত্রকলায় হ্যালোর অবদান অপরিসীম।

Leave a Reply

Your email address will not be published.