স্যাটেলাইট সাম্রাজ্যের রাজত্বধিকারী দেশ পরিচিতি

স্যাটেলাইট

আধুনিক প্রযুক্তি ও বিজ্ঞানের এক অবিশ্বাস্য বিস্ময় স্যাটেলাইট। আমাদের দৈনন্দিন জীবন ও কাজের সঙ্গে কৃত্তিম উপগ্রহ প্রযুক্তি বেশ ঘনিষ্ট ভাবে জড়িত। কোনোই সন্দেহ নেই যে, কৃত্তিম উপগ্রহ ছাড়া সম্ভব হত না অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজই।

কৃত্তিম উপগ্রহ কি ?

আমরা সকলেই জানি চাঁদ পৃথিবীকে কেন্দ্র  করে ঘুরে যা একটি উপগ্রহ হিসেবে পরিচিত। তেমনি কোন গ্রহকে কোন বস্তু একটি নির্দিষ্ট পর্যায়কাল মেনে প্রদক্ষিণ করলে তাঁকে আমরা উপগ্রহ হিসেবে চিনি। এই উপগ্রহ আবার দুই ধরনের হয়ে থাকে যার একটি হল মানুষের তৈরি কিংবা কৃত্রিম এবং অপরটি হল চাঁদের মতো প্রাকৃতিক উপগ্রহ। আরেকটু পরিষ্কার করে বলতে গেলে, কৃত্রিম উপগ্রহ হলো মহাকাশে উৎক্ষেপিত বৈজ্ঞানিক প্রক্রিয়ায় উদ্ভাবিত উপগ্রহ। আর এর সবচেয়ে বড় প্রয়োজনীয়তা মূলত, এটি ব্যাবহার করে বিশ্বের বিভিন্ন জায়গার খবর আমরা নিমিষেই পেয়ে যাই।

কিভাবে উপরে পাঠানো হয় ?

কোনো বস্তুকে যদি অভিকর্ষ বলের সমান বলে বিপরীত দিকে ঠেলে দেয়া হয়, তবে যেখানে গিয়ে অভিকর্ষ বল নিষ্ক্রিয় হয়ে যাবে, সেখানে বস্তুটি চাঁদের মতো পৃথিবীর চারদিকে ঘুরতে থাকবে। আর আমরা জানি যে, ভুমি থেকে যত উপরে উঠা যায়, অভিকর্ষ বলের মান ততই কমতে থাকে এবং সেখানে বাধাও কম থাকে। এর জন্য কৃত্তিম উপগ্রহকে প্রায় 930 কিলোমিটার উঁচুতে পাঠাতে হয়। এই উচ্চতায় তুলে ঘণ্টায় 39 হাজার কিলোমিটার বেগ দিয়ে পৃথিবীর সমান্তরালে ছেড়ে দিলেই এটি ঘুরতে থাকবে।আর মজার ব্যাপার হলো, এই বেগটা এক ধাপে তোলা যায় না। তোলা হয় তিন স্তরে।তিন স্তরে তোলার কারণ হলো প্রথম স্তরে থাকে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডল। সেখানে এতো বেগে বায়ুর সাথে ঘর্ষণ হলে আগুন জ্বলে উঠবে এবং স্যাটেলাইট পুড়ে যাবে। এই জন্য বায়ুস্তর অতিক্রম করার পর এই বেগ তোলা হয়। উপগ্রহটি বসানো হয় রকেটের মাথায়। জ্বালানি এবং অন্যান্য যন্ত্রপাতি রকেটের ভিতরে থাকে।

কৃত্তিম উপগ্রহ এর মালিকানাঃ

জাতিসংঘের মহাকাশবিষয়ক সংস্থা ইউনাইটেড নেশনস অফিস ফর আউটার স্পেস অ্যাফেয়ার্সের (ইউএনওওএসএ) হিসাবে, ২০১৭ সাল পর্যন্ত মহাকাশে স্যাটেলাইটের সংখ্যা ৪ হাজার ৬৩৫। প্রতিবছরই স্যাটেলাইটের এ সংখ্যা ৮ থেকে ১০ শতাংশ হারে বাড়ছে।

5e337e0762fa8143e4128974
Image Source : Insider

স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ ও এর গতিবিধি নিয়ে কাজ করে এন২ওয়াইও.কম ওয়েবসাইটের তথ্য মতে, সাবেক সোভিয়েত রাশিয়া ভুক্ত দেশগুলোর (কমনওয়েলথ অব ইন্ডিপেন্ডেন্ট স্টেটস) সম্মিলিত স্যাটেলাইট সংখ্যা ১৫০৪টি, যুক্তরাষ্ট্রের ১৬১৬টি, চীনের ২৯৮টি, জাপানের ১৭২টি, ফ্রান্সের ৬৮টি (জার্মানির সঙ্গে যৌথভাবে ১টি), ভারতের ৮৮টি, জার্মানির ৫২টি, কানাডার ৪৮টি, যুক্তরাজ্যের ৪২টি, ইতালির ২৭টি, দক্ষিণ কোরিয়ার ২৪টি, স্পেনের ২৩টি, অস্ট্রেলিয়ার ২১টি, আর্জেন্টিনার ১৮টি, ইসরাইলের ১৭টি, ব্রাজিলের ১৭টি (যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যৌথভাবে ১টি এবং চীনের সঙ্গে যৌথভাবে ৩টি), ইন্দোনেশিয়ার ১৬টি, তুরস্কের ১৪টি, সৌদি আরবের ১৩টি, মেক্সিকোর ১২টি, সুইডেনের ১২টি, সিঙ্গাপুরের ৯টি, ডেনমার্কের ৯টি, তাওয়ানের ৯টি, সংযুক্ত আরব আমিরাতের ৯টি, থাইল্যান্ডের ৯টি, নরওয়ের ৮টি, মালয়েশিয়ার ৬টি, কাজাখস্তানের ৬টি, আলজেরিয়ার ৬টি, নাইজেরিয়ার ৬টি, দক্ষিণ আফ্রিকার ৬টি, নেদারল্যান্ডসের ৬টি, গ্রীসের ৪টি, লুক্সেমবার্গের ৪টি। পাকিস্তান, চিলি, ভেনিজুয়েলা, ভিয়েতনামের ৩টি করে; বেলারুশ ইকুয়েডর মিশর, চেক রিপাবলিক, উত্তর কোরিয়া ফিলিপিন্স, পোল্যান্ড এবং পর্তুগালের ২টি করে;
আজারবাইজান, বলিভিয়া, বুলগেরিয়া, এস্তোনিয়া, ইরাক, ইরান, লাটভিয়া, লাওস, লিথুনিয়া, মরক্কো, পেরু, স্লোভাকিয়া এবং উরুগুয়ের ১টি করে স্যাটেলাইট রয়েছে।

এছাড়া বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার অনেকগুলো স্যাটেলাইট বর্তমানে কক্ষপথে অবস্থান করছে। এগুলোর মধ্যে ইউরোপিয়ান অর্গানাইজেশন ফর দ্যা এক্সপ্লয়টেশন অব মেরিওরোলজিক্যাল স্যাটেলাইটসের ৮টি, গ্লোবারস্টারের ৮৪টি, ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সির ৮২টি, ইউরোপিয়ান টেলিকমিউনিকেশনস স্যাটেলাইট অর্গানাইজেশনের ৫১টি, আরব স্যাটেলাইট কমিউনিকেশন অর্গানাইজেশনের ১৩টি, এশিয়া স্যাটেলাইট টেলিকমিউনিকেশনস কোম্পানির ৮টি, ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল স্যাটেলাইট অর্গানাইজেশনের ১৭টি, ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনের ৭টি, নিউইকোর ১টি, ন্যাটোর ৮টি, ওথ্রিবি নেটওয়ার্কের ১৬টি, অর্বকমের ৪১টি স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করেছে।

৫৭তম দেশ হিসেবে মহাকাশে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপনের গৌরব অর্জন করলো বাংলাদেশ।

স্যাটেলাইট এর আদ্যোপান্ত আর্টিকেলটি পড়তে ক্লিক করুন

প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ :
কৃত্রিম উপগ্রহের আবিষ্কার ও মহাকাশ যাত্রার ইতিহাস খুব একটা পুরনো নয়।

Image Source : sputnik news

ষাটের দশকে প্রথমবারের মতো এ গৌরব অর্জন করে তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন। পরের বছর যুক্তরাষ্ট্রও মহাকাশের উদ্দেশ্যে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণে সক্ষম হয়। এরপর একে একে ফ্রান্স, জাপান, চীন ও ভারতসহ ৫৬টি দেশ মহাকাশ জয় করে।

মহাকাশে প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ উৎক্ষেপণের কৃতিত্ব সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের। ১৯৫৭ সালের ৪ অক্টোবর উৎক্ষেপিত স্পুৎনিক ১ নামের কৃত্রিম উপগ্রহটির নকশা করেছিলেন সের্গেই করালিওভ নামের একজন ইউক্রেনীয়। একই বছর সোভিয়েত ইউনিয়ন মহাকাশে দ্বিতীয় কৃত্রিম উপগ্রহ স্পুৎনিক-২ উৎক্ষেপণ করে।

স্পুৎনিক-২ লাইকা নামের একটা কুকুর বহন করে নিয়ে যায়। অবশ্য উৎক্ষেপণের কয়েক ঘণ্টার মধ্যে তাপনিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার ত্রুটির কারণে লাইকা মারা যায়।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৪৫ সালে মহাকাশে কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠানোর পরিকল্পনা করে।

তাদের পরিকল্পনা সফল হয় ১৯৫৮ সালের ৩১ জানুয়ারি। তাদের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ এক্সপ্লোরার-১ এদিন মহাকাশে উৎক্ষেপণ করা হয়।রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের পর ১৯৬৫ সালে মহাকাশে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণে সক্ষম হয় ফ্রান্স।

১৯৭০ সালে একই গৌরব অর্জন করে জাপান।বাংলাদেশের আগে সবশেষে  তালিকায় যুক্ত হয় কোস্টারিকার নাম।

পৃথিবীর মাত্র ১০টি দেশ নিজস্ব প্রযুক্তি ও উৎক্ষেপণ কেন্দ্র থেকে মহাকাশে কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠাতে সক্ষম।এর মধ্যে রয়েছে রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, জাপান, চীন, যুক্তরাজ্য, ভারত, ইসরাইল, ইউক্রেন এবং ইরান।

দক্ষিণ এশিয়ায় স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের তালিকায় শীর্ষে ভারত। গেল বছর একদিনে ১০৪টি স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করে ইতিহাস গড়ে দেশটি। এর আগে ২০১৪ সালে রাশিয়া এক সঙ্গে ৩৭টি স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করেছিল। এছাড়া, গেল বছর ৫ মে ”দক্ষিণ এশিয়া কৃত্রিম উপগ্রহ” নামে একটি যৌথ প্রকল্পও শুরু করে ভারত।

কিভাবে কাজ করে:
কৃত্রিম উপগ্রহ এমনভাবে পৃথিবীর চতুর্দিকে ঘূর্ণায়মান হয়, যাতে এর গতির সেন্ট্রিফিউগাল বা বহির্মুখীন শক্তি ওকে বাইরের দিকে গতি প্রদান করে – কিন্তু পৃথিবীর মধ্যাকর্ষণ শক্তি একে পৃথিবীর আওতার বাইরে যেতে দেয় না। উভয় শক্তি কৃত্রিম উপগ্রহকে ভারসাম্য প্রদান করে এবং কৃত্রিম উপগ্রহটি পৃথিবীর চতুর্দিকে প্রদক্ষিণ করতে থাকে। যেহেতু মহাকাশে বায়ুর অস্তিত্ব নেই তাই এটি বাধাহীনভাবে পরিক্রমণ করে । কৃত্রিম উপগ্রহগুলো বৃত্তাকারে পরিক্রমণ করে না, তার গতি ডিম্বাকৃতির।

টিভি ও বেতারসংকেত প্রেরণ এবং আবহাওয়া পর্যবেক্ষণকারী কৃত্রিম উপগ্রহগুলো সাধারণত পৃথিবীথেকে ৩৬ হাজার কিলোমিটার দূরে অবস্থান করে।
পৃথিবী থেকে বেতার তরঙ্গ ব্যবহার করে তথ্য পাঠানো হয়, কৃত্রিম উপগ্রহ সেগুলো গ্রহণ করে এবং বিবর্ধিত (এমপ্লিফাই) করে পৃথিবীতে প্রেরণ করে । কৃত্রিম উপগ্রহ দুইটি ভিন্ন কম্পাঙ্কের তরঙ্গ ব্যবহার করে সিগনাল (তথ্য) গ্রহণ এবং পাঠানোর জন্য । কৃত্রিম উপগ্রহ থেকে পৃথিবীতে আসা সিগনাল অনেক দুর্বল বা কম শক্তিসম্পন্ন হয়ে থাকে, তাই প্রথমে ডিস এন্টেনা ব্যবহার করে সিগনালকে কেন্দ্রীভূত করা হয় এবং পরে রিসিভার দিয়ে গ্রহণ করে প্রয়োজনীয় কাজে ব্যবহার করা হয় ।

কৃত্রিম উপগ্রহের জ্বালানী:
কৃত্রিম উপগ্রহগুলোর উৎক্ষেপণের সময়ই পর্যাপ্ত জ্বালানি গ্রহণ করতে হয়। কারণ মহাকাশে রিফুয়েলিংয়ের কোনো সুযোগ নেই। তবে কিছু উপগ্রহ জ্বালানি হিসেবে সৌরশক্তি ব্যবহার করে। এদের গায়ে সৌরকোষ লাগানো থাকে, যা ব্যবহার করে থেকে সে সূর্য থেকে তার প্রয়োজনীয় শক্তি গ্রহণ করে ।

ব্যবহার:

INTL CHARTER
Image Source : Geospatial world


মানুষ বিভিন্ন প্রয়োজনে অনেক কৃত্রিম উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করেছে, বিশেষ করে কমিউনিকেশন (যোগাযোগ) এর কাজে স্যাটেলাইট অনেক বেশি ব্যবহৃত হয় । বেশিরভাগ টেলিভিশন চ্যানেল তাদের অনুষ্ঠান সম্প্রচার করে এর মাধ্যমে । তাছাড়া ইন্টারনেট সংযোগ, টেলিফোন সংযোগ, উড়ন্ত বিমানে নেটওয়ার্ক প্রদান, দুর্গম এলাকায় নেটওয়ার্ক প্রদান, জিপিএস সংযোগসহ বিভিন্ন কাজে কৃত্রিম উপগ্রহ ব্যবহৃত হয় ।
তবে ভূ-স্থির বা জিওস্টেশনারি উপগ্রহগুলো এক জায়গাতেই থাকে। এগুলো আবহাওয়া ও যোগাযোগ সংক্রান্ত কাজে ব্যবহƒত হয়। পৃথিবীর কক্ষপথে স্যাটেলাইট উপবৃত্তাকার পথে ঘোরে। সাধারণত ৮০-১ হাজার ২০০ মাইল উচ্চতাবিশিষ্ট কক্ষপথে বিভিন্ন ধরনের স্যাটেলাইট পাঠানো হয়। কাজের ধরনের ওপর নির্ভর করে স্যাটেলাইটটি কত উচ্চতায় বসবে। যেমন উদ্ভিদ ও প্রাণী নিয়ে গবেষণা, বণ্যপ্রাণীর চরে বেড়ানো পর্যক্ষেণ, অ্যাস্ট্রোনমি এবং পদার্থ বিজ্ঞান নিয়ে গবেষণা করার জন্য সায়েন্স স্যাটেলাইটকে বসানো হয় ৩০ হাজার থেকে ৬ হাজার মাইল উচ্চতায়।
আবার গোবাল পজিশনিং সিস্টেম (জিপিএস) স্যাটেলাইট স্থাপন করা হয় ৬ হাজার থেকে ১২ হাজার মাইল উচ্চতায়। এক এক ধরনের স্যাটেলাইটের বৈশিষ্ট্য ও গঠন প্রণালী একেকরকম। তবে সব স্যাটেলাইটের মধ্যেই সাধারণত কিছু মিল আছে। স্যাটেলাইটের শরীর ধাতু সংকরের ফ্রেম দিয়ে তৈরি। একে বলে বাস। এতেই স্যাটেলাইটের সব যন্ত্রপাতি থাকে। প্রত্যেক স্যাটেলাইটে থাকে সোলার সেল এবং শক্তি জমা রাখার জন্য ব্যাটারি। এর পাওয়ার সিস্টেম প্রসেসকে পৃথিবী থেকে সবসময় মনিটর করা হয়। স্যাটেলাইটে একটি অনবোর্ড কম্পিউটার থাকে যা একে নিয়ন্ত্রণ এবং বিভিন্ন সিস্টেমকে মনিটর করে। স্যাটেলাইটের আরেকটি মৌলিক বৈশিষ্ট হল এর রেডিও সিস্টেম ও অ্যান্টেনা।


কৃত্রিম উপগ্রহ এমনভাবে পৃথিবীর চতুর্দিকে ঘূর্ণায়মান হয়, যাতে এর গতির সেন্ট্রিফিউগাল বা বহির্মুখীন শক্তি ওকে বাইরের দিকে গতি প্রদান করে – কিন্তু পৃথিবীর মধ্যাকর্ষণ শক্তি একে পৃথিবীর আওতার বাইরে যেতে দেয় না। উভয় শক্তি কৃত্রিম উপগ্রহকে ভারসাম্য প্রদান করে এবং কৃত্রিম উপগ্রহটি পৃথিবীর চতুর্দিকে প্রদক্ষিণ করতে থাকে। যেহেতু মহাকাশে বায়ুর অস্তিত্ব নেই তাই এটি বাধাহীনভাবে পরিক্রমণ করে । কৃত্রিম উপগ্রহগুলো বৃত্তাকারে পরিক্রমণ করে না, তার গতি ডিম্বাকৃতির।

সংঘর্ষ ও ভূপাতিত:
২০০৯ সালে ১০ ফেব্রুয়ারি আমেরিকার কৃত্রিম উপগ্রহ ইরিডিয়াম ৩৩ এবং রাশিয়ার কসমস ২২৫১ উপগ্রহের ধাক্কা লাগে। ঘটনাটি ঘটে সাইবেরিয়ার ৭৮৯ কিলোমিটার ওপরে। নাসা’র উপগ্রহ বিজ্ঞানি মার্ক ম্যাটনি এমএসএসবিসি চ্যানেল কে জানান, দুটি গোটা কৃত্রিম উপগ্রহের সম্মুখ সংঘাতের ঘটনা এই প্রথম ঘটল।মহাশুন্যের ব্ল্যাক হোল, নিউট্রন স্টারের ছবি তোলা, এক্স-রে ইত্যাদির উৎসস্থল খুঁজে বের করার জন্য ১৯৯০ সালে জার্মানির উপগ্রহ রোসাটকে মহাকাশে প্রেরণ করা হয়। কিন্তু মধ্যাকর্ষণজনিত কারণে বলয়ের মধ্যে চলে আসায় ২০১১ সালের ২২ কিংবা ২৩ অক্টোবরের মধ্যে এটি পৃথিবীর যে-কোন জায়গায় আঘাত হানে ।

দেশভিত্তিক প্রথম উৎক্ষেপিত কৃত্রিম উপগ্রহ
ক্রমিক নংদেশতারিখরকেটের নামউপগ্রহের নাম
 সোভিয়েত ইউনিয়ন৪ অক্টোবর ১৯৫৭স্পুটনিক-পিএস (রকেট)স্পুটনিক-১
 যুক্তরাষ্ট্র১ ফেব্রুয়ারি ১৯৫৮জুনো-১এক্সপ্লোরার-১
 ফ্রান্স২৬ নভেম্বর ১৯৬৫ডায়ামান্টএস্ট.রিক্স
 জাপান১১ ফেব্রুয়ারি ১৯৭০ল্যাম্বডা-৪এস (রকেট)ওসুমি
 চীন২৪ এপ্রিল ১৯৭০লং মার্চ-১ডং ফ্যাং হং-১
 যুক্তরাজ্য২৮ অক্টোবর ১৯৭১ব্ল্যাক এ্যারোপ্রোসপেরো এক্স-৩
 ভারত১৮ জুলাই ১৯৮০এসএলভিরোহিনি ডি১
 ইসরায়েল১৯ সেপ্টেম্বর ১৯৮৮শ্যভিতওফেক-১
 রাশিয়া২১ জানুয়ারি ১৯৯২সোয়ুজ-ইউকসমস-২১৭৫
১০ ইউক্রেন১৩ জুলাই ১৯৯২সাইক্লোন-৩স্ট্রেলা
১১ ইরান২ ফেব্রুয়ারি ২০০৯সাফির-১ওমিড
১২ উত্তর কোরিয়া১২ ডিসেম্বর ২০১২উনহা-৩কুয়াংমিওংজং ইউনিট ২
১৩ দক্ষিণ কোরিয়া৩০ জানুয়ারি ২০১৩নারো-১এসটিএসএটি-২সি
১৪ ইরান১২ নভেম্বর ২০১৮ইলেকট্রনকিউবস্যাট

তথ্যসুত্র : উইকিপিডিয়া

স্যাটেলাইট সম্পর্কে অজানা সব তথ্য আর্টিকেলটি পড়তে ক্লিক করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.