সুপারনোভা কী?

images 57

সুপারনোভা হল এক ধরনের নাক্ষত্রিক বিস্ফোরণ প্রক্রিয়া, যার কারণে একটি নক্ষত্র ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়ে যায় এবং অবশেষরূপে থাকে শীতল নীহারিকা এবং ব্ল্যাকহোল। সকল নক্ষত্রের মতো আমাদের সূর্যেরও একদিন এই পরিণতি ঘটবে। একটি নক্ষত্রের ঔজ্জ্বলতায় খুব দ্রুত এবং শক্তিশালী পরিবর্তনকে নোভা বলে।

সুপারনোভা হল নক্ষত্রের বিস্ফোরণ। নক্ষত্রের জ্বালানি হাইড্রোজেন। নিউক্লিয়ার ফিউশনের ফলে এই হাইড্রোজেন হিলিয়ামে পরিণত হয় আর নক্ষত্রের আকার ও উজ্জ্বলতা বাড়তে থাকে। এক সময় নক্ষত্রটি নিজের গ্র্যাভিটির কারণে নিজের দিকে সংকুচিত হয় এবং তার ফুলে ওঠা বাইরের স্তর প্রচন্ড বিস্ফোরণের মাধ্যমে বাইরের মহাকাশে ছড়িয়ে দেয়। এই বিস্ফোরণের নামই সুপারনোভা। আমাদের সূর্য সারা জীবনে যে পরিমাণ শক্তি উৎপন্ন করে সুপারনোভায় এক সেকেন্ডে সে পরিমাণ শক্তি উৎপন্ন হয়।

images 56

সুপারনোভার বিস্ফোরণ

মহাকর্ষ বলের প্রভাবে নক্ষত্রমন্ডলীর গ্যাস এবং ধূলিকণার মেঘ জমাটবদ্ধ হবার মাধ্যমে একটি নক্ষত্রের জন্ম প্রক্রিয়া শুরু হয়। মেঘ যতই জমাটবদ্ধ হতে থাকে তার অভ্যন্তর ভাগের অণুগুলোর মধ্যে সংঘর্ষের তীব্রতাও বৃদ্ধি পায়। ফলে সৃষ্টি হয় প্রচন্ড উত্তাপ। এই তাপ এমন এক পর্যায়ে পৌঁছে যখন ৪টি হাইড্রোজেন পরমাণু যুক্ত হয়ে একেকটি হিলিয়াম পরমাণু সৃষ্টি করতে শুরু করে।আমরা জানি প্রতিটি নক্ষত্রের অভ্যন্তরে চলতে থাকে ফিউশন বিক্রিয়া। এ বিক্রিয়ায় হাইড্রোজেন পরিণত হয় হিলিয়ামে এবং সাথে নির্গত হয় প্রচুর শক্তি। যখন এই হাইড্রোজেন শেষ হয়ে যায় তখন সূর্যের মতো নক্ষত্র গুলোর বহিরাবরণ পরিত্যাগ করে (কেন করে কিভাবে করে তার ব্যাখ্যা একটু বড়)। এর ফলে এটি খুব ছোট এবং উত্তপ্ত White Dwarf তারায় পরিণত হয়।

বাইনারি নক্ষত্র ব্যবস্থায় (যেখানে দুটো তারা একে অপরকে কেন্দ্র করে ঘোরে) একটি তারা যদি হয় White Dwarf এবং অন্যটি যদি সেসময় Red Giant তারায় পরিণত হওয়া শুরু করে, তাহলে White Dwarf তারাটি Red Giant তারাটির বাহিরাবরণ থেকে অভিকর্ষের মাধ্যমে কিছু গ্যাস নিজের দিকে টেনে নিয়ে আসবে। এই গ্যাসের বেশিরভাগ হলো হাইড্রোজেন। এই হাইড্রোজেন গ্যাস যখন প্রচণ্ড উত্তপ্ত White Dwarf’র পৃষ্ঠে গিয়ে পৌঁছুবে, এটি সাথে সাথে জ্বলে উঠবে এবং White Dwarf’র পৃষ্ঠে নিউক্লিয়ার বিষ্ফোরণ সংঘটিত হবে। আর এটিই আমরা আমাদের রাতের আকাশে নোভা হিসেবে দেখি।

এই ধরনের বিস্ফোরণে বিপুল পরিমাণ শক্তি নির্গত হয় এবং সে সময়ে সংশ্লিষ্ট নক্ষত্রটি সাময়িকভাবে কখনো কখনো পুরো ছায়াপথের চেয়েও বেশি উজ্জ্বল হয়ে ওঠে। আর এই সুপারনোভা ঘটনার মাধ্যমেই একটি নক্ষত্রের মৃত্যু ঘটে। বিজ্ঞানীরা বলছেন প্রতি সেকেন্ডেই মহাবিশ্বের কোথাও না কোথাও সুপারনোভা বিস্ফোরণ ঘটে চলেছে। আমাদের সীমাবদ্ধতা থাকার কারণে আমরা সবগুলোকে দেখতে পারিনা। খালি চোখে আমরা শুধু আমাদের ছায়াপথের কাছাকাছি যে সুপারনোভা বিস্ফোরণ ঘটে সেগুলোকেই দেখতে পারি। বিজ্ঞানীরা বলছেন, আমাদের আকাশগঙ্গার মতো ছায়াপথে ৫০ বছরে একটি সুপারনোভার বিস্ফোরণ ঘটে থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.