মুহম্মদ ইবনে সউদ কে ছিলেন?

মুহম্মদ ইবনে সউদ

সউদ রাজবংশের একজন প্রতিভাবান শাসক ছিলেন মুহম্মদ ইবনে সউদ। তিনি অত্যন্ত দৃঢ়তার সাথে ১৭২৫-১৭৬৩ সাল পযর্ন্ত শাসনকার্য্য পরিচালনা করেন। তিনি অত্যন্ত বিচক্ষণ ও বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী ছিলেন। রাজ্যবিস্তার ও রাজকার্য্য পরিচালনায় তিনি বিশেষ কৃতিত্বের পরিচয় দেন।

মুহাম্মদ ইবনে সউদের পরিচয়

সৌদি রাজবংশের প্রথম আমির ছিলেন নেজদের দারিয়ার দলনেতা মুহাম্মদ ইবনে সউদ। তিনি ১৭০৮ সালে জন্মগ্রহণ করেন। স্বীয় দক্ষতা, যুদ্ধকৌশল ও বুদ্ধিমত্তার দ্বারা পিতার মৃত্যুর পর ১৭২৫ সালে আমিরাত লাভ করেন। এ সময়ে নজদ অঞ্চলে মুহম্মদ আল-ওহাবের শুদ্ধি ইসলামে তিনি আকৃষ্ট হন এবং ওহাবি আন্দোলনে সমর্থন ও ওহাবের শিষ্যত্ব গ্রহণ করেন। মুহাম্মদ ইবনে সউদ ওহাবের কন্যাকে বিবাহ করে ওহাবি মতবাদ সম্প্রচার এবং স্বীয় রাজ্যবিস্তারের দিকে মনোনিবেশ করেন।

তিনি মুহাম্মদ আল-ওহাবকে কেবল তার মতবাদ প্রচার করার জন্যই সুযোগ-সুবিদা দেন নি; বরং এর স্থায়িত্বের জন্য একটি রাজনৈতিক পরিমণ্ডল সৃষ্টির প্রচেষ্টা করেন। মুহাম্মদের তেজোদীপ্ত ও বলিষ্ঠ যুদ্ধস্পৃহার ফলে আরব ভূখণ্ডের মধ্য এবং পূর্বাঞ্চল ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র গোত্র ও শহর সৌদি রাজবংশের রাজত্বের অন্তর্ভুক্ত হয়। মাত্র দশ বছরে দারিয়ার ক্ষুদ্র আমিরাত ধর্মীয় রাষ্ট্রীয় নীতির ব্যাপক প্রয়োগে ত্রিশ বর্গমাইল পযর্ন্ত বিস্তৃতি লাভ করে। মুহাম্মদ ইবনে সউদ হাসার নৃপতিকে পরাজিত করে সৌদি রাজ্য পশ্চিম দিকেও বিস্তার লাভ করতে সক্ষম হন। রাজ্যবিস্তার ও সুশৃঙ্খল শাসন প্রতিষ্ঠা ছিল তার রাজত্বকালের অন্যতম কীর্তি।

মুহাম্মদ ইবনে সউদের নেতৃত্বে আঠারো শতকের শেষভাগে সৌদি রাজবংশ নেজদে এবং ১৭৭৩ সালে রিয়াদে তাদের আধিপত্য সুপ্রতিষ্ঠিত করে। সৌদি রাজবংশের ধর্মীয় ভিত্তি ছিল ইবনে তায়মিয়ার ভাবাদর্শে উদ্ভাবিত ‘শুদ্ধি’ ইসলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published.