প্রত্যক্ষ গণতন্ত্র নাকি পরোক্ষ গনতন্ত্র? দেশ পরিচালনায় কোনটা বেশি কার্যকর? আসুন জেনে নেই – 

Thumbnail Image 1

গণতন্ত্র শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ ‘Democracy’। Democracy বা গণতন্ত্র শব্দটি এসেছে গ্রিক শব্দ থেকে। গ্রীক শব্দ Demos ও kratos / kratia শব্দদ্বয় থেকে Democracy শব্দটি এসেছে।‘Demos’  অর্থ জনগন ও ‘ Kratos/ kratia ‘ অর্থ শাসন ক্ষমতা ‘ । আসুন জেনে নেওয়া যাক –

গণতন্ত্র কাকে বলে?  বা গণতন্ত্র বলতে কী বুঝায়?

গণতন্ত্র বলতে এমন এক সরকার ব্যবস্থা বুঝায় যেখানে আইন, নীতি, নেতৃত্ব ও রাষ্ট্রীয় সব গুরুত্বপূর্ণ উদ্যোগ প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভাবে জনগণ কর্তৃক নির্ধারিত হয়ে থাকে। 

গণতন্ত্রের ২টি প্রধান শ্রেণি বা প্রকার হলো:- 

  • ১. প্রত্যক্ষ গণতন্ত্র ( Direct democracy)  
  • ২. পরোক্ষ বা প্রতিনিধিত্বমূলক গণতন্ত্র ( Representative democracy) 

প্রত্যক্ষ গণতন্ত্রে নাগরিকগণ সরাসরি রাষ্ট্রীয় কাজে অংশগ্রহন করে থাকে। অপরদিকে পরোক্ষ বা প্রতিনিধিত্বমূলক গণতন্ত্র জনগন প্রতিনিধি নির্বাচন করেন যারা জনগণের হয়ে শাসনব্যবস্থা পরিচালনা করে।

 প্রত্যক্ষ গণতন্ত্রে জনগনের অংশগ্রহণ ও ইচ্ছাকে প্রাধান্য দেওয়া হয়। প্রত্যক্ষ গণতন্ত্রে জনগণ সরাসরি তাদের সমস্যার কথা বলতে পারে , সমস্যা সমাধানে সিধান্ত নিতে পারে রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ কোন কাজটি করা হবে কোনটি করা হবে না বা কীভাবে করা হবে ইত্যাদি যাবতীয় কাজ এ জনগণ মতামত দিতে পারে । 

অর্থাৎ এখানে জনগণ রাষ্ট্রীয় কাজে  সরাসরি অংশগ্রহণ করে থাকে এবং তাদের মতামতের ভিত্তিতে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় ।

 তবে প্রত্যক্ষ গণতন্ত্রের কিছু সমস্যা রয়েছে যেমন:- এই অংশগ্রহণে  অনেকসময় জনগণের উদাসীনতা দেখা দিতে পারে তখন সংখ্যালুঘু জনগনের মতামতের ভিত্তিতে রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ কাজের সিদ্ধান্ত নিতে হয়। 

আবার, প্রত্যক্ষ গণতন্ত্রের আরো একটি সমস্যা হলো গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন  জটিল সব বিষয়ে সাধারণ জনগনের ধারণা না ও থাকতে পারে সেক্ষেত্রে সিধান্তগ্রহনে এই বিষয়টি বড় একটি বাধা হয়ে দাঁড়াবে।

 এছাড়াও, অনেকসময়  তাৎক্ষণিক ও গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহনের প্রয়োজন হতে পারে সেক্ষেত্রে ঘন ঘন গনভোটের আয়োজন করা,জনগনের মতামত নেওয়া অনেকটা সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। কাজেই প্রত্যক্ষ গণতন্ত্রে এই বিষয়টিও একটি বড় বাঁধা বলা যায় ।

পরোক্ষ বা প্রতিনিধিত্বমূলক গণতন্ত্রে  জনগন, যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতার আলোকে যোগ্য প্রতিনিধি নির্বাচন করে থাকে।

 এ গণতন্ত্রে , জনগণের প্রতিনিধি বা সরকার দ্রুত ও কার্যকরী সিধান্ত নিতে পারে। তবে পরোক্ষ গণতন্ত্রে  জনগণ সরাসরি রাষ্ট্রীয় কাজে অংশগ্রহন করতে পারে না। 

প্রাচীন এথেন্সে প্রত্যক্ষ গণতন্ত্র পদ্ধতি অনুসরণ করা হতো বর্তমানে প্রত্যক্ষ গণতন্ত্র তেমন নেই বললেই চলে তবে সুইজারল্যান্ড ও যুক্তরাষ্ট্রের কিছু শহরে এখনও প্রত্যক্ষ গণতন্ত্র দেখা যায়।

 মূলত প্রত্যক্ষ গণতন্ত্র ছোট শহর বা সম্প্রাদায়ের জন্য কার্যকর তবে বৃহৎ পরিসরে, যেমন – রাষ্ট্র পরিচালনায় পরোক্ষ গণতন্ত্র সবচেয়ে বেশি কার্যকর।

 প্রত্যক্ষ গণতন্ত্র ও পরোক্ষ গণতন্ত্র উভয় গণতন্ত্রে কিছু সমস্যা রয়েছে তাই আধুনিক বিশ্বে, প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ গণতন্ত্রের সমন্বয়ে হাইব্রিড গণতন্ত্র অনুসরণ করে রাষ্ট্র পরিচালনা করা হয়।