ডার্ক-ওয়েব
প্রযুক্তি

ডার্ক ওয়েব ওয়েবসাইট অ্যাক্সেস

istockphoto 1143736474 612x612 1
image source : iStock

ডার্ক ওয়েব হল ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবের একটি উপাদান যা ডার্ক নেটে বা লুকানো নেটে বিদ্যমান। আমরা যে ইন্টারনেট ব্যবহার করি সেটা মাত্র পাঁচ থেকে ছয় শতাংশ জুড়ে রয়েছে ডার্ক নেট। এটি পাবলিক ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর ক্ষেত্রে একধরনের লুকায়িত নেটওয়ার্ক।সাধারণ মানুষ ইন্টারনেটে যা সার্চ করতে পারে তাকে ওপেন ওয়েব বলে। মানে ধরুন ফেসবুক, ক্যোরা এগুলো ওপেন ওয়েব সাইট। মজার ব্যাপার হল ইন্টারনেটর মাত্র ১% এই ওপেন ওয়েব‌।

তাহলে ডার্ক ওয়েব কী?

719gzVi0 8L
image source : Amazon

আপনারা হয়েতো Tor এর নাম শুনেছেন। এটার দ্বারা আপনি আপনার পরিচয় গোপন করে ইন্টারনেটে বিচরণ করতে পারবেন। এই টর মার্কিন নৌবাহিনী তৈরী করেছিল। এটা তারা তৈরী করেছিল কারণ যুদ্ধের সময় সামরিক তথ্য আদান প্রদানের সব পন্থা নষ্ট হয়ে গেলে তারা সাধারণ ইন্টারনেটের মাধ্যমে যাতে সুরক্ষিত ভাবে তথ্য আদান-প্রদান করতে পারে।

এবার Tor Hidden Services ব্যবহার করে আপনি গোপন ওয়েবসাইট হোস্ট করতে পারেন। সাধারণ ওয়েব সাইটের শেষে যেমন .com, .org, .in, .us থাকে সেরকম এই গোপন ওয়েবসাইট গুলোর শেষে .onion থাকে। টরের আরেক নাম অনিয়ন রাউটার কারণ এখানে একজনের পরিচয় পেঁয়াজের খোসার মতো একের পর এক লেয়ারের পিছনে লুকানো। টর নেটওয়ার্কে বিভিন্ন কম্পিউটার আছে যারা আপনার হয়ে ওয়েব সাইট রিকোয়েস্ট করে। এই রিকোয়েস্ট বিভিন্ন কম্পিউটারে রিলে হয়ে এবং সার্ভার ভাবে এটা অন্য জায়গা থেকে আসছে।

তো এই গুপ্ত ওয়েবসাইট গুলো কেবল মাত্র টর ব্যবহার করে খোলা যায় এবং যদি আপনি ওয়েবসাইটের নাম না জানেন সে ক্ষেত্রে টর ব্যবহার করেও এই ওয়েবসাইট আপনি খুলতে পারবেন না। এই কারণে অসামাজিক ব্যক্তিরা গুপ্ত ওয়েবসাইট খুলে তাতে অনৈতিক এবং অসামাজিক কাজ করে যেমন ড্রাগ বেচা, বন্দুক বেচা, মানুষ বেচা এরকম হরেক রকম বস্তু বেচা যা সাধারণ ভাবে বেআইনি। এই ধরনের ওয়েবসাইটগুলো ডার্ক ওয়েবের আওতায় আসে।বেচা কেনা ছাড়াও জঙ্গি এবং উগ্রপন্থীরা ফেসবুকের মত ওয়েবসাইট বানিয়ে তাতে তথ্য আদান প্রদান করে। হামলা বা নাশকতার ছক বানায়। এগুলোও ডার্ক ওয়েবের আওতায় আসে।

তবে টরের অনেক ভালো ব্যবহার আছে। চিন, ইরানের মতো দেশে ইন্টারনেট কঠোর ভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হয়। এখানে সরকারের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে অনেকে টর ব্যবহার করে। জার্নালিস্টরা তাদের সোর্সের সঙ্গে সুরক্ষিত ভাবে তথ্য আদান-প্রদান করতে ব্যবহার করে টর।তার মানে ইন্টারনেটে যে সব সাইটগুলো সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত নয় এবং তা ব্যবহার করা হয় অনৈতিক কাজকর্ম করতে সেগুলোকে ডার্ক ওয়েব বলে।

ডার্ক ওয়েব সম্পর্কে অজানা রহস্য আর্টিকেলটি পড়তে ক্লিক করুন

ডার্ক ওয়েব এর ওয়েবসাইটগুলোতে আক্সেস করতে চাইলে আপনার করণীয় –

১ । TOR ব্রাউজার ডাউনলোড এবং ইনস্টল করুন

tor browser 0 43 29 1
image source : Tor Blog – Tor Project

ডার্ক ওয়েবের অংশগুলি অ্যাক্সেস করার জন্য প্রায়ই ব্যবহৃত ব্রাউজার TOR ( অন্ধকার ওয়েব ব্রাউজার) মূলত মার্কিন গোয়েন্দা অনলাইন যোগাযোগ রক্ষা করতে সহায়তা করার জন্য তৈরি করা হয়েছিল।আজ, ডার্ক ওয়েবে অবস্থিত .onion ওয়েবসাইটগুলি অ্যাক্সেস করার কয়েকটি উপায় এটির একটি।

TOR জনপ্রিয় ফায়ারফক্স ওয়েব ব্রাউজারের একটি সংস্করণ যা ব্যবহারকারীদের বেনামে ওয়েব ব্রাউজ করার অনুমতি দেয়। ব্রাউজারটি ব্যবহারকারীদের প্রচেষ্টাগুলি তাদের পরিচয় প্রকাশ করতে পারে এমন কিছু করার জন্য ব্লক বা পরামর্শ করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে।

২। ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক

ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক (ভিপিএন) সার্ভারগুলি যা আপনি ওয়েবে অ্যাক্সেস করার মাধ্যমে সংযুক্ত হন। এই সার্ভারগুলি আপনার উৎসটি গোপন করতে সহায়তা করে এবং বিশ্বের অন্যান্য অনেক স্থান থেকে লোকেশন অনুকরণ করতে পারে।যদিও টিওআর আপনার পরিচয়টি গোপন করে তবে এটি আপনার অবস্থানটি গোপন করে না।

ডার্ক ওয়েবের জন্য সেরা ভিপিএন

image source : Tech Times

যাঁরা এর আগে ভিপিএন পরিষেবা ব্যবহার করেননি তাদের পক্ষে আপনিও সেরাদের মধ্যে সাইন আপ করতে পারেন: ExpressVPN। যদিও তাদের ৩০ দিনের ঝুঁকিমুক্ত সময়কালে আপনি তাদের পরিষেবাদির মূল্যায়ন করতে পারেন তা নিয়ে চিন্তা করবেন না।ডার্ক ওয়েবে সার্ফ করার সময় একটি ভিপিএন প্রস্তাবিত হয়। এটি আপনার ডেটাতে অতিরিক্ত স্তরের সুরক্ষা যুক্ত করে এবং আপনার অবস্থান লুকাতে সহায়তা করে।

৩। DuckDuckGo আপনার পরম বন্ধু

Untitled design
image source : VPN Mentor

DuckDuckGo, একটি গোপনীয়তা-কেন্দ্রিক অনুসন্ধান ইঞ্জিন যা আপনি যা করেন – বা আপনি যে সাইটগুলিতে ভিজিট করেন সেগুলি ট্র্যাক করে না।

৪। নিরাপদ ইমেইল ঠিকানা

এখন আপনি যেতে প্রস্তুত, এটি একটি অপ্রচলিত ই-মেইল ঠিকানার জন্য সাইন আপ করার সময়। জি-মেইল প্রশ্নটির বাইরে, এবং আপনাকে অনেক .onion ওয়েবসাইটের জন্য নিবন্ধনের জন্য একটি ই-মেইল ঠিকানা দরকার।

Screenshot 36
image source : Onion.Live

এখানে আপনি কয়েকটি বিবেচনা করতে পছন্দ করতে পারেন:

  • ProtonMail
  • TORbox
  • Bitmessage
  • Lelantos
  • Mail2Tor

* বিদ্র : এগুলিও .onion ডোমেনগুলির সাথে আসে, যা আপনাকে TOR ব্রাউজার ব্যবহার করে অ্যাক্সেস করতে হবে। ক্রোম এবং ফায়ারফক্সের মতো নিয়মিত ব্রাউজারগুলি কাজ করবে না।

৫। ডার্ক ওয়েব অনুসন্ধান ইঞ্জিন

.onion একটি ডোমেন যা ডার্ক ওয়েবে একচেটিয়াভাবে ব্যবহৃত হয়। এগুলি নিয়মিত ডোমেনগুলির মতো, তবে টিওআর এর মতো বিশেষায়িত ব্রাউজার ছাড়া অ্যাক্সেস করা যায় না।

এখানে তুলনামূলকভাবে নিরপরাধ .onion ঠিকানাগুলির কয়েকটি রয়েছে যা আপনি চেষ্টা করতে পারেন:

  • DuckDuckGo সার্চ ইঞ্জিন
  • ই-বুক

ডার্ক ওয়েব নিরাপত্তা গাইড

১. আপনার টর ​​ব্রাউজারটি আপ টু ডেট রয়েছে কিনা তা নিশ্চিত করুন

টর ব্রাউজার 9.0a4 এখন টর ব্রাউজার আলফা ডাউনলোড পৃষ্ঠা থেকে উপলব্ধ রয়েছে (যারা নতুন বৈশিষ্ট্য পরীক্ষা করতে চান তাদের জন্য)।

টোর ব্রাউজারটি ব্যবহার করে .onion সাইটগুলি পরিদর্শন করা প্রয়োজন তবে প্রতিটি অ্যাপ্লিকেশনটিতে মাঝে মাঝে দুর্বলতা থাকে। সর্বদা আপনার টর ​​ব্রাউজারটি নিশ্চিত করুন আপডেট ছিল কিনা এবং যে কোন থ্রেট নোটিশ থেকে সাময়িকভাবে দূরে থাকার চেষ্টা করুন।

. অতিরিক্ত সুরক্ষার জন্য ভিপিএন ব্যবহার করুন

সাধারণ মানুষ ইন্টারনেটে যা সার্চ করতে পারে তাকে ওপেন ওয়েব বলে। মানে ধরুন ফেসবুক, ক্যোরা এগুলো ওপেন ওয়েব সাইট। মজার ব্যাপার হল ইন্টারনেটর মাত্র ১% এই ওপেন ওয়েব‌।

তবে আপনি যদি আপনার সেটিংস বদলে ফেলেন এবং আপনার প্রোফাইলকে সার্চ ইঞ্জিনের আওতায় বাইরে রাখেন সে ক্ষেত্রে আপনার প্রোফাইল ডীপ ওয়েবের আওতায় চলে আসবে। মানে সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করে যে তথ্য বা ওয়েবসাইট আপনি খুঁজে পাবেন না তাই ডীপ ওয়েবর আওতায় আসে। যেমন ধরুন আপনার ব্যাংক একাউন্টের তথ্য, আপনার ইমেইল গুলো এগুলো ডীপ ওয়েবে ফেলা যায়। এগুলো ইন্টারনেটেই আছে কিন্তু সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত নয়। কিন্তু এগুলো কোন ভাবেই বেআইনি নয়। অনেকে ডীপ ওয়েব এবং ডার্ক ওয়েব এক জিনিষ ভাবে কিন্তু দুটো আলাদা।

. ম্যাক্রো ব্যবহার বন্ধ করুন

জাভাস্ক্রিপ্টের মতো স্ক্রিপ্টগুলি চালিত ম্যাক্রো এবং অ্যাপ্লিকেশনগুলি কৃমির সম্পূর্ণ নতুন ক্যান খুলতে পারে এবং আপনার ঝুঁকি প্রোফাইলকে যথেষ্ট পরিমাণে বাড়ায় , ইউটিউবের মতো কিছু সাধারণ সাইটগুলির তাদের প্রয়োজন হয় তবে ডার্ক ওয়েবে কোনও সাইট যদি আপনাকে স্ক্রিপ্টগুলি সক্ষম করতে বলছে, আবার ভাবুন আপনি ভাইরাস বা ম্যালওয়্যার সংক্রমণ উচ্চ ঝুঁকি নিতে সক্ষম কি না ?

৪. আপনি যা ডাউনলোড করেন তা পর্যবেক্ষণ করুন

লোগোটি ভাইরাস এবং ম্যালওয়্যার এড়াতে উপরের মতই, তবে অন্ধকার ওয়েবে আপনি যা ডাউনলোড করেন তা দয়া করে দেখুন। মনে রাখবেন, দূষিত কোডটি প্রায় কোনও ফাইলের প্রকারে এম্বেড করা যেতে পারে এবং এটি খুব দেরী না হওয়া পর্যন্ত আপনি তা জানবেন না। যদি আপনাকে অবশ্যই এটি করতে করতে ভার্চুয়াল মেশিনটি ব্যবহার করতে চান তবে এটি আপনার বাকি অপারেটিং সিস্টেমগুলিকে পৃথক করে তুলবে।

. আপনার মানসিকতা পরিবর্তন করুন

অনেক লোক আজকে ওয়েব সাইটটি পরিত্যাগ করে এবং এমনকি সাইবার হুমকিগুলি বাড়িয়ে দিয়েও ব্রাউজ করে, এখনও মানসিকতা রয়েছে যে ওয়েবটি কেবল নিরাপত্তার জন্য নিরাপদ জায়গা।এই মানসিকতার সাথে অন্ধকার ওয়েব ব্রাউজিং মারাত্মক হতে পারে.সর্বদা সচেতন এবং সচেতন থাকুন কাওকে বিশ্বাস করবেন না । এখানে একটি চূড়ান্ত টিপ রয়েছে – অন্ধকার ওয়েবে বন্ধুদের তৈরি করার বিষয়ে সতর্ক থাকুন, এটি ফেসবুক নয়।

ডার্ক ওয়েব সম্পর্কে অজানা রহস্য আর্টিকেলটি পড়তে ক্লিক করুন

Latest News

Istiklal copy

ইশতিকলাল পার্টি কী?

১৯৫৬ সালের ২ মার্চ মরক্কো দেশটি স্বাধীনতা লাভ করে। এ স্বাধীনতা আন্দোলন পঞ্চম মুহাম্মদ ও ইশতিকলাল দলে…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *