ট্রান্সজর্ডান কাকে বলে?

ট্রান্সজর্ডান

১৯২১ সালে ইরাক ম্যান্ডেট থেকে জর্ডানকে আলাদা করে রাষ্ট্র গঠন করা হলেও প্রকৃতপক্ষে ১৯১৬ সালের সাইকস-পিকো চুক্তি অনুযায়ীই ইরাকের পশ্চিমাংশকে প্যালেস্টাইনের দক্ষিণ অংশের সাথে যুক্ত করে ট্রান্সজর্ডান নামে আলাদা রাষ্ট্র গঠন করা হয়। এ ট্রান্সজর্ডানের আমির নিযুক্ত হন শরীফ ইবনে আলীর পুত্র আব্দুল্লাহ।

ভৌগোলিক অবস্থানঃ ট্রান্সজর্ডানের ভৌগোলিক অবস্থান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। জর্ডানের উত্তরে রয়েছে সিরিয়া, দক্ষিণে সৌদি, পূর্বে ইরাক ও সৌদি এবং পশ্চিমে ফিলিস্তিন ও ইসরাইল রাষ্ট্র। ভূ-রাজনৈতিক দিক থেকে ট্রান্সজর্ডানের গুরুত্ব অপরিসীম।

ট্রান্সজর্ডানের পরিচিতি

ব্রিটিশ আশ্রিত রাজ্য হিসেবে আমির আব্দুল্লাহ ব্রিটিশদের সহায়তায় ট্রান্সজর্ডানকে আলাদা একটি জাতিসত্তা রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলার প্রয়াস পান। এ প্রচেষ্টায় তিনি দেশে একটি গঠনতন্ত্র, একটি পার্লামেন্ট এবং একটি প্রতিরক্ষা বাহিনী গঠন করে দেশের একটি আলাদা সত্তা তৈরি করেন। এ প্রতিরক্ষা বাহিনীই মধ্যপ্রাচ্যে আরব লেজিয়ন নামে খ্যাত। এ বাহিনী প্রারম্ভিকে এক হাজার সদস্য নিয়ে কর্নেল ফ্রেডারিক পিকের নেতৃত্বে পুলিশ বাহিনী হিসেবে গঠিত হয়। কিন্তু পরবর্তীতে মেজর জন গ্লাবের নেতৃত্বে এটি একটি দক্ষ এবং সুশৃঙ্খল বাহিনীতে রূপান্তরিত হয়ে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জার্মানির বিপক্ষে বিশেষ অবদান রাখে। ১৯৪৮-৪৯ সালে সাত হাজার সৈনিকের সমন্বয়ে গঠিত এ বাহিনী পূর্ব জেরুজালেম এবং জর্ডান নদীর পশ্চিম তীর দখল করে ট্রান্সজর্ডানের অন্তর্ভুক্ত করে। প্রকৃতপক্ষে ১৯৪৭ সালের পার্টিশান পরিকল্পনা অনুযায়ী পশ্চিম তীরের এ অংশ ইসরাইলের বিপরীতে প্যালেস্টাইনের অন্তর্ভুক্ত হওয়ার কথা ছিল। ১৯৫০ সালে আমির আব্দুল্লাহ অধিকৃত এ অঞ্চলসহ সমগ্র ট্রান্সজর্ডানকে জর্ডান রাষ্ট্র হিসেবে নামকরণ করেন এবং রাজা বা বাদশাহ উপাধি গ্রহণ করেন। এ থেকেই মূলত এ অঞ্চল ট্রান্সজর্ডান বা জর্ডান নামে পরিচিতি লাভ করে।

আমির আব্দুল্লাহ পশ্চিম তীর এবং পূর্ব জেরুজালেম দখল করে ট্রান্সজর্ডানের সীমা বিস্তৃত করেছিলেন এতে কোনো সন্দেহ নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published.